আজ ১১ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৬শে নভেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

নৌকা প্রার্থীকে জেতাতে কোন পন্থাই বাদ রাখেনি ক্ষমতাসীন ক্যাডার ও প্রশাসন

ওমর ফারুক ভুঁইয়াঃ জিসিসি নির্বাচনে হাতপাখা প্রতীকে মেয়র পদপ্রার্থী প্রিন্সিপাল নাসির উদ্দীন বিভিন্ন কেন্দ্র পরিদর্শন করেন। এসময় গাজীপুর-২ আসনের বর্তমান সংসদ সদস্য জাহিদ আহসান রাসেল এমপির এলাকা নোয়াগাঁও সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্র পরিদর্শনের সময় তিনি ভোট কেন্দ্রের বাইরে ভোটারদের দীর্ঘ লাইন স্থির দাঁড়িয়ে থাকতে দেখেন। ভেতরে খোজ নিয়ে দেখতে পান, ভেতরে চলছে ভোট জালিয়াতির মহোৎসব। অধিকাংশ কেন্দ্রে তিনি একই চিত্র দেখেছেন বলে আমাদের প্রতিনিধির কাছে অভিযোগ করেন।
প্রার্থীর সরেজমিনে দেখা সার্বিক পরিস্থিতির আংশিক চিত্র এরূপঃ
কাশিমপুরের ১, ২, ৩, ৪, ৫ ও ৬নং ওয়ার্ডের কোন কেন্দ্রেই মেয়র প্রার্থীর ব্যালট পেপার ভোটারদের হাতে দেয়া হয়নি। ভোটারদের হাতে শুধুমাত্র কাউন্সিলর ও মহিলা কাউন্সিলর প্রার্থীর ব্যালট পেপার ধরিয়ে দেয়া হয়েছে। প্রতিবাদ করলে দম্ভোক্তি করে বলা হচ্ছে, “ভোট দিলে দেন না দিলে চলে যান, আমরাই দিয়ে দিব”।
পুলিশের কাছে অভিযোগ করেও কোন প্রতিকার মিলেনি বরং কোথাও কোথাও উল্টো পুলিশ কর্তৃক গ্রেফতারের হুমকি দেয়ার অভিযোগও পাওয়া গেছে।
৪১নং ওয়ার্ডের ২৬৮নং কেন্দ্রের হাতপাখার পোলিং এজেন্ট অভিযোগ করে বলেন, একই ব্যাক্তি বারবার ভোট দিতে আসায় আমি তাকে বাধা দিলে, পরবর্তীতে ঐ ব্যাক্তি সাথে পুলিশ নিয়ে আসে। আমি পুলিশের সহযোগীতা চাইলে পুলিশ আমাকে ধমক দিয়ে চুপ করে থাকতে বলেন এবং আমাকে এই বলে হুমকি দেন যে, বেশি কথা বললে হাতকড়া পড়িয়ে নিয়ে যাব।
২৬নং ওয়ার্ডের শহীদ স্মৃতি উচ্চবিদ্যালয়-এর ১৭০ ও ১৭১নং কেন্দ্রে দফায় দফায় সংঘর্ষ ও কেন্দ্র দখলের ঘটনা ঘটেছে এবং এই দুটি কেন্দ্র থেকে হাতপাখার পোলিং এজেন্টদের বের করে দেয়া হয়েছে।
৭নং ওয়ার্ডের ইসমাইল পাঠান স্কুল এন্ড কলেজ-এর ৪৮নং কেন্দ্রে স্কুলের স্বত্বাধিকারী ইসমাইল পাঠান ও তার ছেলে ইমরান পাঠান ভোট গ্রহণ শুরুর পূর্বেই কেন্দ্র দখল করে রাখে। হাতপাখার পোলিং এজেন্টদের এই কেন্দ্রে ঢুকতেই দেয়া হয় নি। স্থানীয় সমর্থকগণ ভোট দিতে না পেরে কান্নায় ভেঙ্গে পরেন।
২১নং ওয়ার্ডের রোভার পল্লী উচ্চবিদ্যালয়ে ১৩৪ ও ১৩৫ নং কেন্দ্র দুপুর থেকে দলীয় কর্মী ছাড়া সাধারণ ভোটারদের কেন্দ্রের ভেতরে ঢুকতে দেয়া হয়নি বলে অভিযোগ করেছেন হাতপাখা মার্কার পোলিং এজেন্ট।
এভাই চলছে গাজীপুর সিটি নির্বাচনে অধিকাংশ কেন্দ্রের ভোট গ্রহণ। শতাধিক কেন্দ্র থেকে একই রকম অভিযোগ এসেছে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ-এর গাজীপুর সিটি নির্বচানী কন্ট্রোল রুমে। এ বিষয়ে স্ব স্ব কেন্দ্রের পোলিং এজেন্টগণ প্রিজাইডিং অফিসারদের কাছে লিখিত অভিযোগ দাখিল করার চেষ্টা করেও ব্যার্থ হলে ইসলামী আন্দোলনের কন্ট্রোল রুম থেকে নির্বাচন কমিশনের রিটার্নিং অফিসের সমন্বয়কারী জনাব তারেক আহমেদকে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে আন্দোলনের উর্ধতন দ্বায়ত্বশীলগণ অভিযোগ সমূহ মৌখিক ভাবে পড়ে শোনান। তিনি অভিযোগ সমূহকে ভিত্তিহীন বলে মন্তব্য করে লাইন কেটে দেন। রিটার্নিং অফিসের সমন্বয়কারীর এমন মন্তব্যের ব্যাপারে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ গাজীপুর মহানগর শাখার সভাপতি আলহাজ্ব মুহা. ফাইজ উদ্দিন বলেন, “নির্বাচন কমিশন সহ আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যদের এমন অবস্থান স্পষ্টতই নৌকার প্রার্থীকে বিজয়ী করার জন্যে সকল অনিময়ে সহযোগীতার ইঙ্গিত দেয়। একটি গণতান্ত্রিক দেশের এমন চিত্র বিশ্ববাসীর কাছ দেশের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ণ ও কলঙ্কিত করবে নিঃসন্দেহে।

আপনার মতামত দিন
2.3K+Shares

স্যোসাল মিডিয়াতে দেখুন আমাদের সংবাদ

Follow us on Facebook Follow us on Twitter Follow us on Pinterest 0

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     একই ক্যাটাগরিতে আরো সংবাদ