আজ ৯ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৩শে জানুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

মূর্তি অপসারণে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ দ্রুত বাস্তবায়নেই দেশ ও জাতির কল্যাণ: মুফতী ফয়জুল করীম

আইএবি নিউজ : ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের নায়েবে আমীর মুফতি সৈয়দ মুহাম্মদ ফয়জুল করীম বলেছেন, সুপ্রিমকোর্ট প্রাঙ্গণ থেকে গ্রিক দেবীর মূর্তি অপসারণে প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা ও আইনমন্ত্রীর বক্তব্য থেকে বুঝা যাচ্ছে যে, প্রধান বিচারপতির খায়েশেই মূর্তি স্থাপিত হয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণার পরও প্রধানবিচারপতি মূর্তি অপসারণ না করে ধর্মীয় সেন্টিমেন্টের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছে এবং ৯২ ভাগ মুসলমানের দেশে প্রধান বিচারপতি মূর্তি স্থাপন করে নিরপক্ষেতা হারিয়েছেন।
মঙ্গলবার (২৫ এপ্রিল) ঢাকার দক্ষিণ কেরাণীগঞ্জের শুভাঢ্যয় আয়োজিত বিশাল ইসলামী মহাসম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন। এছাড়াও সম্মেলনে স্থানীয় উলামায়ে কেরাম, মসজিদের ইমাম ও খতীবগণ বক্তব্য রাখেন।
তিনি বলেন, মূর্তির সংস্কৃতি ইসলামবিরোধী সংস্কৃতি। মূর্তি ও ইসলাম সাংঘর্ষিক। ইসলাম এসেছে মূর্তি ধ্বংস করতে। যারা মূর্তির সংস্কৃতি লালন করে তারা ঈমানদার হতে পারে না। তিনি বলেন, মূর্তি সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের প্রতীক। হিন্দু সম্প্রদায় তাদের মন্দিরে মূর্তি স্থাপন করে পূজাঁ করুক এতে কারো আপত্তি নেই। কেননা সুপ্রিমকোর্ট হিন্দু বা সংখ্যালঘুদের কোর্ট নয়। এটা দলমত নির্বিশেষে সকলের কোর্ট এবং বিচারপতি সকল সম্প্রদায়ের বিচারপতি। কাজেই প্রধান বিচারপতি মূর্তি স্থাপনের মাধ্যমে তার নিরপেক্ষতাকে প্রশ্নবিদ্ধ করে বিচারপতির চেয়ারে থাকার অধিকার হারিয়েছেন।
মুফতি সৈয়দ ফয়জুল করীম বলেন, মসজিদের নগরী এখন মূর্তির নগরীতে রূপ নিয়েছে। গ্রিক মূর্তি হিন্দুরাও পছন্দ করেন না। প্রধানমন্ত্রীরও পছন্দ নয়, তারপরও মূর্তি থাকবে? অবিলম্বে মূর্তি অপসারণ করতে হবে অন্যথায় সর্বত্র আন্দোলন গড়ে উঠবে। তাই মূর্তি অপসারণে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ দ্রুত বাস্তবায়ন করলে দেশ ও জাতির কল্যাণ হবে।
 
কওমি নিউজ

আপনার মতামত দিন
3.6K+Shares

স্যোসাল মিডিয়াতে দেখুন আমাদের সংবাদ

Follow us on Facebook Follow us on Twitter Follow us on Pinterest 0

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     একই ক্যাটাগরিতে আরো সংবাদ