আজ ২২শে ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ৭ই মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

লক্ষ্মীপুর-১ আসনে ইসলামী আন্দোলনের প্রার্থী ডাঃ রফিকুল ইসলাম

পারভেজ হোসাইন, লক্ষ্মীপুর (জেলা) সংবাদদাতাঃ নারিকেল সুপারীতে ভরপুর সয়া ইলিশের লক্ষ্মীপুর। এ জেলায় ৫টি থানা নিয়ে গঠিত লক্ষ্মীপুর-১ (রামগঞ্জ) আসন। এ আসনে ২ লক্ষ ২২ হাজার ৬ শত ৬০টি নারী পুরুষ ভোটার রয়েছেন। অতীতে এ আসনে বিএনপির নেতারাই জয়ী হয়ে আসছেন। বর্তমানে এ আসনে বিএনপির অবস্থান এখন আগের থেকে অনেক দুর্বল। দলীয়ভাবে প্রার্থীদের মধ্যে চলছে অন্তর্দ্বন্দ্ব। ২০০৮ সালের সংসদ নির্বাচনে এ আসনে জয়ী হন বিএনপি নেতা নাজিম উদ্দিন। সেসময় আসনটিতে ইসলামী আন্দোলনের প্রার্থী ছিলেন আব্দুল কবীর মীর। ২০১৪ সালের দশম জাতীয় নির্বাচনে কোন দল  অংশগ্রহণ না করায় এ আসনে বিনা ভোটে নির্বাচিত হন আওয়ামীলীগের অঙ্গসংগঠন তরিকতের মহাসচিব ও বর্তমান এমপি এম এ আউয়াল। নির্বাচিত হওয়ার পর এ আসনে তেমন কোন উন্নয়ন মূলক কাজ হয়নাই।আসনের মানুষ রাস্তাঘাট নিয়ে বড় বিপাকের মধ্যে রয়েছে। এছাড়াও নাগরিক, মানবিক ও অন্যান্য মৌলিক অনেক সমস্যাবলী তো আছেই। এ আসনে বর্তমানে আওয়ামীলীগের সম্ভাব্য অনেক প্রার্থী রয়েছেন। আগামী নির্বাচনে এ আসন থেকে কে দলের টিকেট পাবেন এ নিয়ে দলের মধ্যে চাপা দ্বন্দ্ব বিরাজ করছে।
এ দিকে পীর সাহেব চরমোনাইর নেতৃত্বাধীন ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ রামগঞ্জ উপজেলার সিনিয়র সহ-সভাপতি ডাঃ মুহাম্মদ রফিকুল ইসলাম-কে এ আসনে সম্ভাব্য প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন দেয়া হয়েছে। প্রার্থী হিসেবে গত রমজানের পর থেকেই এ আসনে নির্বাচনী প্রচার চালিয়ে যাচ্ছেন ডাঃ রফিকুল ইসলাম। দলের লক্ষ্মীপুর জেলা সভাপতি ক্যাপ্টেন অবঃ মুহাম্মদ ইব্রাহিম জানান, প্রার্থী হিসেবে মাঠে কাজ করছেন ডাঃ রফিকুল ইসলাম। উপজেলা, ইউনিয়ন এবং ওয়ার্ড পর্যায়ে ইসলামী আন্দোলন ও অঙ্গ সংগঠনগুলোর কমিটি গঠন করা হচ্ছে। আশা করি নির্বাচনী মাঠে ইসলামী আন্দোলনের দলের জনসমর্থনের বিষয়টি পরিষ্কারভাবে দেখতে পারবেন সবাই।
হাতপাখার প্রার্থী ডাঃ রফিকুল ইসলাম বলেন, দেশের স্থায়ী শান্তি, মানবতার মুক্তি, সমৃদ্ধশালী ও কল্যাণকর রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা এবং সন্ত্রাস দুর্নীতি দুঃশাসন নির্মুলে ইসলামকে রাষ্ট্রীয়ভাবে বিজয়ী করার জন্য পীর সাহেব চরমোনাইর নেতৃত্বে জাতীয় সংসদ নির্বাচনে লক্ষ্মীপুর-১ (রামগঞ্জ) আসনে প্রার্থী হিসেবে আমি কাজ করছি।
তিনি আরো বলেন, এ আসনের মানুষ আওয়ামীলীগ, বিএনপির অপরাজনীতির কারণে রাজনৈতিকভাবে আজ অবরুদ্ধ। তারা দু’দলের অপশাসন থেকে মুক্তি চায়। এলাকার সার্বিক উন্নয়ন, মানুষের নৈতিক ও মানবিক অধিকার সুনিশ্চিত করতে আমাদের দল প্রতিজ্ঞাবদ্ধ। বড় দুই দলের শাসনের নামে শোষণ নিপীড়ন ও সীমাহীন দুর্নীতি-দুঃশাসন জনগণ দেখেছে। তারা এখন এ অবস্থার পরিবর্তন চায়।
নির্বাচন বিষয় জানতে চাইলে রামগঞ্জ উপজেলা সভাপতি মাওলানা হুসাইন আহমাদ বলেন, আগের তুলনায় এ আসনে আমাদের জনসমর্থন অনেক বেশি। আশাকরি অবাধ, সুষ্ঠু এবং গ্রহণযোগ্য নির্বাচন হলে  ইনশাআল্লাহ ইসলামী আন্দোলন এ আসনে জয়ী হবে।

আপনার মতামত দিন
2K+Shares

স্যোসাল মিডিয়াতে দেখুন আমাদের সংবাদ

Follow us on Facebook Follow us on Twitter Follow us on Pinterest 0

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     একই ক্যাটাগরিতে আরো সংবাদ