আজ ১১ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৫শে জানুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

শ্রমিককে শোষণ করে পুঁজিপতিদের টাকার পাহাড় গড়া প্রতিহত করতে হবে: মুফতি ফয়জুল করীম

আইএবি নিউজ : ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ-এর নায়েবে আমীর মুফতি সৈয়দ মুহাম্মদ ফয়জুল করীম বলেছেন, শ্রমিকরা আজ সবচেয়ে বেশি অবজ্ঞা ও বঞ্চনার শিকার। শ্রমিকদের শ্রম নিয়ে পুঁজিপতিরা আজ আঙ্গুল ফুলে কলাগাছ হলেও শ্রমিকরা তাদের ন্যায্য অধিকার ফিরে পায়নি। অথচ ইসলাম শ্রমিকদের সর্বাদিক মর্যাদা দিয়েছে। ইসলামী শ্রমনীতি বাস্তবায়ন হলে শুধু মানুষ নয়, পশুরা তাদের অধিকার ফিরে পাবে।
তিনি সকলস্তরের শ্রমিকদের ইসলামী শ্রমনীতি বাস্তবায়নে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করার এবং শ্রমিক শোষণ করে পুঁজিপতিদের টাকার পাহাড় গড়া প্রতিহত করার আহ্বান জানান।
মুফতি ফয়জুল করীম বলেন, সুপ্রিমকোর্ট প্রাঙ্গণে গ্রিক দেবী মূর্তি স্থাপনের মাধ্যমে মুসলমানিত্ব ধ্বংস ও হিন্দুত্ববাদ কায়েমের চক্রান্ত চলছে। তিনি আরও বলেন, মহানবী সা. ঘাম শুকানোর আগেই শ্রমিকদের মজুরি আদায়ের আদেশ দিয়েছেন। মালিক যা খাবেন-পরবেন শ্রমিকদেরও তা খেতে পরতে দিতে মহানবী সা. নির্দেশ দিয়েছেন।
তিনি আরো বলেন, হিন্দুত্ববাদী পাঠ্যসুচী ও নাস্তিক্যবাদী শিক্ষানীতি ও শিক্ষা আইন বাস্তবায়নের চক্রান্ত হলে কঠিন আন্দোলন গড়ে তোলা হবে।
সোমবার সকালে জাতীয় প্রেসক্লাব চত্বরে ইসলামী শ্রমিক আন্দোলন ঢাকা মহানগর আয়োজিত বিশাল শ্রমিক সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।
সমাবেশ বাস্তবায়ন কমিটির আহ্বায়ক আলহাজ্ব আব্দুর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত শ্রমিক সমাবেশে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন, দক্ষিণ সভাপতি মাওলানা ইমতিয়াজ আলম, কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক প্রকৌশলী আশরাফুল আলম, মাওলানা আহমদ আবদুল কাইয়ূম, উত্তর সভাপতি অধ্যক্ষ মাওলানা শেখ ফজলে বারী মাসউদ, হাফেজ মাওলানা সিদ্দিকুর রহমান। প্রধান বক্তা ছিলেন শ্রমিক আন্দোলনের সাধারণ সম্পাদক মাওলানা মুহাম্মদ খলিলুর রহমান।
অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন প্রিন্সিপাল মাওলানা আতাউর রহমান আরেফী, শ্রমিক আন্দোলন ঢাকা পূর্ব সভাপতি মাওলানা আলআমিন সাইফী, দক্ষিণ সভাপতি আলহাজ্ব সাব্বির আহমেদ সাব্বির, পশ্চিম সভাপতি মুহাম্মদ গোলাম কিবরিয়া, উত্তর সহ-সভাপতি মুফতি মিজানুর রহমান, ঢাকা জেলা দক্ষিণ সভাপতি মুহা. শামীম খান, ঢাকা উত্তর সভাপতি আলহাজ্ব মুহা. ইবরাহিম ও নারায়ণগঞ্জ জেলা সভাপতি মুহা. শাহাদাত হোসেন, ছাত্রনেতা শরীফুল ইসলাম, আলহাজ্ব নজরুল ইসলাম খোকন, মুহা. নকীব বিন হুসাইন, মুহা. আমিরুল ইসলাম, মুহাম্মদ ইমাম হোসেন ভুইয়া, মুফতি মুহিব্বুল্লাহ, মুহা. ইলিয়াস, মুহা. শহিদুল ইসলাম, শহিদুল্লাহ ভুইয়া,মুহা. জাফর আহমদ, ডা. আলমগীর হোসেন।
মাওলানা ইমতিয়াজ আলম বলেন, ১০জন শ্রমিক হত্যাকে কেন্দ্র করে মে দিবসের উৎপত্তি হলেও এখন প্রতিনিয়ত শত শত শ্রমিক মারা যাচ্ছে, কিন্তু এসব শ্রমিক হত্যার বিচার হচ্ছে না।
তিনি বলেন, কোন সরকারই শ্রমজীবী মানুষের প্রতি ন্যায়সঙ্গত আচরণ করে না।
মাওলানা খলিলুর রহমান বলেন, ক্ষতিগ্রস্থ শ্রমিকদের জন্য প্রদত্ত দেশ-বিদেশের শত শত কোটি টাকা লুটপাট হয়েছে। ১৩০ বছর আগে মাত্র ১০জন শ্রমিক হত্যাকে কেন্দ্র করে এই মে দিবসের উৎপত্তি হলেও এখন প্রতিনিয়ত শত শত শ্রমিক হত্যার কোন বিহিত হয় না। রানা প্লাজা ঘটনায় ১০৩৪জন শ্রমিক মৃত্যুবরণ করেছে। শত শত শ্রমিক নিখোঁজ রয়েছে। এর কোন সুরাহা হয়নি।
মাওলানা আহমদ আবদুল কাইয়ূম বলেন, শ্রমজীবী ও মেহনতি মানুষের হাড়ভাঙ্গা শ্রমে শিল্প- কারখানা ও সুউচ্চ অট্টালিকা গড়ে উঠলেও শ্রমিকরাই সবচেয়ে বেশি শোষণ-বঞ্চনা এবং নির্মম দুঃখ-দুর্দশার শিকার।
সভাপতির বক্তব্যে আলহাজ্ব মুহাম্মদ আব্দুর রহমান বলেন, ১৩০ বছর আগে মে দিবসের ঘটনা শুরু হলেও আজ পর্যন্ত শ্রমজীবী মানুষের মৌলিক অধিকার প্রতিষ্ঠা হয়নি। তিনি বলেন, শ্রমিক সমাজ বিত্তবানদের প্রয়োজনীয় সকল পণ্য উৎপাদন করলেও তাদের সন্তানেরা সে সব পণ্য সামগ্রী উপভোগ থেকে বঞ্চিত হচ্ছে এবং বহু শ্রমিক অনাহারে ও অর্ধাহারে দিন কাটাচ্ছে।

আপনার মতামত দিন
0Shares

স্যোসাল মিডিয়াতে দেখুন আমাদের সংবাদ

Follow us on Facebook Follow us on Twitter Follow us on Pinterest 0

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     একই ক্যাটাগরিতে আরো সংবাদ