আজ ৪ঠা মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ১৮ই জানুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

রাষ্ট্রপতির বক্তব্যে বিস্ময় ও উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন পীর সাহেব চরমোনাই

আইএবি নিউজ : হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের উদ্দেশ্যে প্রদত্ত রাষ্ট্রপতির ধর্মভিত্তিক রাষ্ট্রসংক্রান্ত বক্তব্যকে প্রত্যাখ্যান করে এর প্রতিবাদ জানিয়েছেন ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ-এর আমীর মুফতী সৈয়দ মুহাম্মাদ রেজাউল করীম- শায়েখ চরমোনাই। এক প্রতিবাদলিপিতে তিনি উল্লেখ করেছেন, হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের উদ্দেশ্যে মহামান্য রাষ্ট্রপতি বলেছেন, “বিশ্বকে অবশ্যই ধর্মভিত্তিক রাষ্ট্রগঠনের ধারণা থেকে বেরিয়ে আসতে হবে….”।
পীর সাহেব চরমোনাই বলেন, ইসলাম সর্বজনীন ও পূর্ণাঙ্গ ধর্ম বা জীবনব্যবস্থা। অন্য ধর্মের সাথে ইসলামকে গুলিয়ে ফেলা মোটেও সুবিবেচকের কাজ নয়। ইতিহাস স্বাক্ষী, প্রায় ১৪০০ বছর পূর্বে সর্বযুগের সর্বশ্রেষ্ঠ মহামানব হযরত মুহাম্মাদ স. ঝঞ্ঝাবিক্ষুব্ধ আরবে ইসলাম ও মদীনা সনদের ভিত্তিতে রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠিত করেছিলেন, তা সকল ধর্মের মানুষকে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি ও শান্তি দিতে সক্ষম হয়েছিল। যা ইসলাম ছাড়া অন্যান্য ধর্মের মণিষীরা পর্যন্ত তাদের লিখনীতে উল্লেখ করেছেন। এমনকি পার্শ্ববর্তী রোম-পারস্যের অন্য ধর্মের মানুষ পর্যন্ত সেসময় নিজ দেশ ত্যাগ করে দলে দলে রাসূল সা. প্রতিষ্ঠিত রাষ্ট্রে আবাস গড়েছিল। সেই রাষ্ট্রের কোথাও অন্য ধর্মের মানুষের ধর্মকর্মে বাধা প্রদান বা তাদের উপর অত্যাচার করা হয়েছে এমন কোন ঘটনা ঐতিহাসিকরা খুজে পাননি।
পীর সাহেব চরমোনাই বলেন, রাষ্ট্রপতি মহোদয় যে ধর্মনিরপেক্ষতাকে সব ধর্মের মানুষের মুক্তির উপায় হিসেবে বর্ণনা করেছেন, তার কোন বাস্তবতা নেই। তার বক্তব্য রাসূল সা. প্রতিষ্ঠিত রাষ্ট্র ব্যবস্থা সম্পর্কে সম্পূর্ণ অজ্ঞতারই বহি:প্রকাশ। আমাদের পার্শ্ববর্তী ধর্মনিরপেক্ষ রাষ্ট্র ভারতে হাজার হাজার ধর্মীয় দাঙ্গা হয়েছে, এখনও প্রতিনিয়ত সেখানে সংখ্যালঘুরা নির্যাতিত, নিষ্পেষিত ও উপেক্ষিত হয়ে আসছে।
তিনি আরো বলেন, দুনিয়া ও আখেরাতের সব সমস্যার শান্তিপূর্ণ সমাধান একমাত্র ইসলামই দিতে পারে, আর তা হতে পারে রাসূল সা. প্রতিষ্ঠিত রাষ্ট্র ব্যবস্থার মাধ্যমে, এ ব্যাপারে বিভ্রান্তির কোন অবকাশ নেই। আমাদের দেশের রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম এবং প্রধানমন্ত্রীও বলেছিলেন, মদীনা সনদের ভিত্তিতে দেশ চলবে। মাননীয় রাষ্ট্রপতির বক্তব্য সংবিধান এবং প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যের সম্পূর্ণ বিপরীত। রাষ্ট্রপতির মত একটি দায়িত্বশীল পদে থেকে এধরণের অজ্ঞতাপ্রসূত বক্তব্য জাতিকে হতাশ করেছে।

আপনার মতামত দিন
0Shares

স্যোসাল মিডিয়াতে দেখুন আমাদের সংবাদ

Follow us on Facebook Follow us on Twitter Follow us on Pinterest 0

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     একই ক্যাটাগরিতে আরো সংবাদ